• মঙ্গলবার, ২৭ জুলাই ২০২১, ১১:১৩ অপরাহ্ন
Headline
কঠোর লকডাউন কতোটা ফলপ্রসূ? সরকারের দৃষ্টি আকর্ষণ। করোনায় স্বাস্থ্যবিধি মানতে নড়াইলে মাশরাফির ব্যতিক্রমী পদক্ষেপ কি কি থাকছে সাত দিনের কঠোর লকডাউনে? লাগামহীন করোনার ভয়াবহতা! সোমবার থেকে কঠোর লকডাউন, মাঠে থাকবে সেনাবাহিনী। দেশের শীর্ষ পর্যটনকেন্দ্রের তালিকায় অপার সম্ভাবনার নাম সুনামগঞ্জের তাহিরপুর উপজেলা নতুন সাতটি প্রতিষ্ঠানের সাথে চুক্তি স্বাক্ষর সম্পূর্ণ করলো শ্রেষ্ঠ ডট কম রাণীনগরে প্রতিপক্ষকে ফাঁসাতে একই পরিবারের তিন জনকে অপহরণ নাটোক! নতুন সাতটি প্রতিষ্ঠানের সাথে চুক্তি স্বাক্ষর সম্পূর্ণ করলো শ্রেষ্ঠ ডট কম শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার দাবিতে ২৪ মে সারাদেশে মানববন্ধনের ডাক দিয়েছে পলিটেকনিক শিক্ষার্থীরা রাণীনগরে জমি থেকে আধা-পাকা ধান কেটে নেয়ার অভিযোগ




দেশের শীর্ষ পর্যটনকেন্দ্রের তালিকায় অপার সম্ভাবনার নাম সুনামগঞ্জের তাহিরপুর উপজেলা

Reporter Name / ৩০৪ Time View
Update : শুক্রবার, ১৮ জুন, ২০২১




বাপ্পী খান: বাংলাদেশের চায়ের দেশ খ্যাত কিংবা পীর আওলিয়াগণের শহর বলে সবাই সিলেট কে একনামে চেনে। সিলেট বিভাগের অন্যতম একটি জেলা হলো সুনামগঞ্জ। সুনামগঞ্জ জেলার অহংকার সেখানকার তাহিরপুর উপজেলা। এ তাহিরপুর উপজেলা সম্পর্কে অনেকেরই ধারণা নেই। কিন্তু সুনামগঞ্জ জেলার অপার সম্ভাবনাময় একটি উপজেলা হলো তাহিরপুর। যথাযথ পদক্ষেপ এবং সরকারের স্বদিচ্ছাই পারে তাহিরপুর উপজেলা কে একটি পূর্ণাঙ্গ পর্যটন কেন্দ্র হিসেবে গড়ে তুলতে।

খাসিয়া জৈন্তা পাহাড়ের পাদদেশে অবস্থিত লাউড়ের পাহাড়ের নামানুসারে পৌরাণিক যুগের লাউড় রাজ্যের কালের সাক্ষি এই তাহিরপুর উপজেলা । যাহা বাংলাদেশের নির্বাচনী এলাকাঃ ২২৪ সুনামগঞ্জ -০১ এ অবস্থিত। এই উপজেলার উত্তরে – ভারতের মেঘালয় রাজ্য, দক্ষিণে সুনামগঞ্জ জেলার জামালগঞ্জ উপজেলা, পূর্বে সুনামগঞ্জ জেলার বিশ্বম্ভরপুর উপজেলা এবং পশ্চিমে ধর্মপাশা উপজেলা অবস্থিত।

কথায় আছে, মৎস-পাথর-ধান হলো সুনামগঞ্জের প্রাণ। আর এই মৎস-পাথর-ধান এর অন্যতম যোগানদাতা হলো তাহিরপুর উপজেলা। সুতরাং, এ উপজেলার অর্থনীতির অন্যতম উৎস এসব। বিশেষ করে হাওড়ের বোরো ধান হলো প্রধান উৎস। আর এর পরে রয়েছে হাওরের মাছ। নদীতেও প্রচুর মাছ ধরা পড়ে। তাহিরপুর উপজেলার ফাজিলপুরের বালি দেশ বিখ্যাত ও দেশের একমায়ত্র চুনাপাথর খনি রয়েছে এ উপজেলায়। বেশ কয়েক বছর আগে চালু হওয়া কয়লা আমদানীও অর্থনীতিতে ব্যাপক ভুমিকা রেখেছে। কৃষি প্রধান পেশা হলেও- ইদানীং ব্যবসা-বাণিজ্যে আগ্রহ দেখা যাচ্ছে খুব। মূলত, ধান চাষ প্রকৃত নির্ভরতা থাকায় বছরের জলের কমতি-বাড়তিতে ও এ উপজেলার লোকেদের ভাগ্য উঠানামা করে।

তাহিরপুর উপজেলায় গণমানুষের চেয়ারম্যান হিসেবে পরিচিত বর্তমান উপজেলা চেয়ারম্যান করুনা সিন্ধু চৌধুরী বাবুল। যিনি স্থানীয় সাধারণ মানুষের নিকট অত্যন্ত জনপ্রিয় এবং পরিশ্রমী একজন মানুষ। যিনি দিন রাত তার উপজেলার মানুষের ভাগ্যে উন্নয়নে নিজের প্রচেষ্টা অব্যাহত রেখেছেন।

তাহিরপুর উপজেলায় অবস্থিত বাংলাদেশের দ্বিতীয় বৃহত্তম হাওর, টাঙ্গুয়ার হাওর। যে হাওর দেখতে প্রতিবছরই ছুটে যান লাখ লাখ ভ্রমণপিপাসু মানুষ এবং পর্যটকেরা। টাঙ্গুয়ার হাওর ছাড়াও এখানে রয়েছে হাওলি জমিদার বাড়ি, নীলাদ্রি লেক, (যেটা স্থানীয়দের কাছে শহীদ সিরাজ লেক নামে পরিচিত), ট্যাকেরঘাট, লাকমাছড়া, যাদুকাটা নদী, বারেক টিলা, শিমুল বাগান, শনির হাওর এবং শাহ আরেফিন (রহ.) এর মোকাম এলাকা। এতগুলো দর্শনীয় স্থান এবং প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের এলাকা হওয়া স্বত্তেও এখানে নেই তেমন কোন সুযোগ সুবিধা ও পরিচিতি।

স্থানীয় উপজেলা চেয়ারম্যান জনাব, করুনা সিন্ধু চৌধুরী বাবুল জানান, আমাদের তাহিরপুর উপজেলায় বাংলাদেশের বিখ্যাত হাওর এবং এতগুলো দর্শনীয় স্থান থাকার পরও এখানে এখনো অবহেলিত অবস্থায় রয়েছে। নেই সরকারী কোন গেস্ট হাউস কিংবা থাকার ভাল কোন ব্যবস্থা। যার ফলে যারাই টাঙ্গুয়ার হাওর সহ অন্যান্য দর্শনীয় স্থান দেখতে তাহিরপুর যান তাদের বেশিরভাগই ভাল কোন সুযোগ সুবিধা না থাকায় ইঞ্জিন চালিত নৌকার মধ্যেই রাত্রিযাপন করে পরদিন হয়তো ফিরে যান।
চেয়ারম্যান সাহেব জানান, আমি নিজে ব্যক্তিগতভাবে পদক্ষেপ নিয়ে সর্বাত্মক চেষ্টা করে যাচ্ছি তাহিরপুর উপজেলা কে একটি পূর্ণাঙ্গ পর্যটন কেন্দ্র হিসেবে গড়ে তোলার। তিনি আরো বলেন, আমি একজন চেয়ারম্যান হিসেবে আমার যতটুকু সাধ্য রয়েছে সেটা নিয়েই আমি ইতিমধ্যেই অনেক কাজ শুরু করে দিয়েছি। উপর মহলে আবেদন জানিয়েছি আমাদের এলাকাটি পর্যবেক্ষণ করে এটাকে কিভাবে সকলের নিকট পরিচিতি বাড়ানো যায় এবং পাশাপাশি একটি পর্যটন কেন্দ্রে যে সকল সুযোগ সুবিধা থাকে সে সুযোগ সুবিধাগুলো যেন তাহিরপুর উপজেলা তে করা হয় তার সকল ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য।


সর্বোপরি চেয়ারম্যান জনাব করুনা সিন্ধু চৌধুরী বাবুল বলেন, আমি যতদিন আছি বঙ্গবন্ধুর নীতি আর আদর্শ কে মাথায় নিয়ে জননেত্রী শেখ হাসিনার ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার প্রত্যয়ে তাহিরপুর উপজেলা কে একটি আধুনিক উপজেলা ও পর্যটনকেন্দ্র হিসেবে গড়ে তুলতে আমার সর্বোচ্চ চেষ্টা অব্যাহত রাখবো।

তিনি উপজেলা পরিষদ কে আরো দৃষ্টিনন্দন হিসেবে গড়ে তুলতে চান। সেখানে তার উদ্যোগে ইতিমধ্যে বঙ্গবন্ধুর একটি স্মৃতি ফলক স্থাপন করা হয়েছে এবং সরকারীভাবে পর্যটকদের জন্য উপজেলা পরিষদ কর্তৃক গেস্ট হাউজের কাজ শুরু করার ও ব্যবস্থা গ্রহণ করেছেন। এছাড়া উপজেলা পরিষদ কে ঘিরে পুকুরপাড় সহ আধুনিকায়নের জন্য বিভিন্ন পদক্ষেপ তিনি ইতিমধ্যে গ্রহণ করেছেন।

তিনি বলেন, আমি মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, আমাদের প্রাণপ্রিয় নেত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার দৃষ্টি আকর্ষণ করে বলতে চাই তাহিরপুর উপজেলা কে বাংলাদেশের একটি প্রচুর সম্ভাবনাময় পর্যটনকেন্দ্র হিসেবে গড়ে তোলা শুধু সময়ের ব্যাপার মাত্র। এবং তাহিরপুর কে একটি পূর্ণাঙ্গ পর্যটনকেন্দ্র হিসেবে প্রতিষ্ঠা করলে এখান থেকে পর্যটনশিল্পের তথা বাংলাদেশ সরকারের আয়ের বড় একটি উৎস হবে এই তাহিরপুর উপজেলা। এ ব্যাপারে তিনি সংশ্লিষ্ট সকলের আন্তরিক সহযোগিতা কামনা করেন।

লেখক, সাংবাদিক: বাপ্পী খান, সিনিয়র যুগ্ন মহাসচিব, বাংলাদেশ সম্মিলিত সাংবাদিক সোসাইটি (BUJS)

single page buttom





আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

More News Of This Category




side bottom