রবিবার, ১৭ জানুয়ারী ২০২১, ১০:১৭ অপরাহ্ন
Title :
বাগমারার ভবানীগঞ্জের পৌর পিতা হলেন আব্দুল মালেক রাণীনগরে সুবিধা বঞ্চিতদের মাঝে আরপিএ’র শীতবস্ত্র বিতরন বাগমারা তাহেরপুর পৌর নির্বাচনে নৌকা নিয়ে এলাকায় ফিরলেন মেয়র কালাম রাণীনগরে পৃথক অভিযানে গ্রেফতার ৪ গাঁজা উদ্ধার কবিতা: অভিযোগ বাগমারা ১৩ নং গোয়ালকান্দী ইউপি ৩ নং ওয়ার্ডে ছাত্রলীগের ৭৩ তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিন রাণীনগরে শীতার্তদের মাঝে শীতবস্ত্র বিতরণ রাণীনগরে ছাত্রলীগের ৭৩ তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উদযাপন রাণীনগরের মেঘনা অধ্যয় কেন্দ্রের শিক্ষার্থীদের মাঝে বই ও স্বাস্থ্য উপকরণ বিতরণ তরুন যুব সংঘ এর পূর্নাঙ্গ কমিটি গঠিত। সভাপতি- তৌহিদ সানি, সাধারন সম্পাদক – আকিব




রাণীনগরে আমন ধানে ব্লাস্ট রোগের আক্রমনে মরে যাচ্ছে ধানের শীষ \ ফলন বিপর্যয়ের আশংকা

Reporter Name
  • Update Time : মঙ্গলবার, ১২ নভেম্বর, ২০১৯
  • ২ Time View

নওগাঁর রাণীনগরে চলতি মৌসুমে আমন ধানে ব্যাপক হারে ব্লাস্ট রোগের আক্রমনে শত শত হেক্টর জমির ধানের শীষ মরে যাচ্ছে । বিভিন্ন কোম্পানীর ওষুধ ছিটিয়েও কোন কাজ না হওয়ায় দিশে হারা হয়ে পরেছেন কৃষকরা । ফলে চলতি মৌসুমে ফলন বিপর্যয়ের আশংকা দেখা দিয়েছে।

রাণীনগর উপজেলা কৃষি দপ্তর সুত্রে জানা গেছে, চলতি আমন মৌসুমে উপজেলার আটটি ইউনিয়নে প্রায় সাড়ে ১৮ হাজার হেক্টর জমিতে বিভিন্ন জাতের ধান রোপন করা হয়েছে। উপজেলার নিন্ম এলাকায় বন্যার পানি দীর্ঘ দিন ধরে জলাবদ্ধতা থাকায় প্রাথমিকভাবে যদিও কৃষ্ িদপ্তর সাড়ে ১৩ হাজার হেক্টর জমিতে ধান উৎপাদনের লক্ষ মাত্রা নির্ধারণ করেছিলেন। তার পরেও পানি নেমে যাওয়ায় ৫ হাজার হেক্টর জমিতে অতিরিক্ত ধান রোপন বেড়েছে। এসব জমিতে আতব জাতের ধানই বেশি রোপন করা হয়েছে। আবাদের শুরুতে আবহাওয়া অনুকুলে থাকায় তেমন রোগ বালায় দেখা না দিলেও ধানের শীষ বের হওয়ার সাথে সাথে শীষের গোড়া থেকে কালো হয়ে মরে ধানের শীষ মরে যাচ্ছে । উপজেলা জুরে শত শত হেক্টর জমিতে এরোগ আক্রমন করায় ধানের শীষ মরা রোধ করতে বিভিন্ন কোম্পানীর ওষুধ ছিটিয়েও কোন কাজ হচ্ছে না । দিন দিন ধানের শীষ আরো বেশি মরে যাচ্ছে।উপজেলার মালশন,বলিদাগাছী,গিরিগ্রাম, আকনা,বাঁশবাড়িয়া ঝিনা,সিম্বা,রণসিংগার পাড়া,খট্রেশ্বর পশ্চিম মাঠ,করজগ্রাম,কালীগ্রাম,জলকৈ,,নারায়ন পাড়া,শরিয়াসহ বিভিন্ন এলাকায় শত শত হেক্টর জমির ধানের শীষ মরে যাচ্ছে । ফলে চলতি মৌসুমে ধানের ফলন বির্যয় হতে পারে বলে আশংকা করছেন কৃষকরা ।রাণীনগর খট্রেশ্বর পশ্চিম পাড়া গ্রামের কৃষক ইদ্রিস আলী জানান, তিনি এবার ৬বিঘা জমিতে ধান রোপন করেছেন । এর মধ্যে তিন বিঘা কাটারি ভোগের ধানে বøাস্ট রোগে আক্রমন করেছে । অনেক ওষুধ ছিটিয়েও কোন লাভ হচ্ছেনা।শরিয়া গ্রামের কৃষক এমরান হোসেন জানান তার চার বিঘা জমির ধানই বøাস্ট রোগে আক্রান্ত হয়ে মরে যাচ্ছে । নারায়ন পাড়া গ্রামের কৃষক মোসারফ হোসেন জানান, তিনি প্রায় ১৪ বিঘা জমিতে ধান রোপন করেছেন । এর মধ্যে প্রায় ৬ বিঘা জমির ধান রোগে আক্রান্ত হয়েছে । মরু পাড়া গ্রামের কৃষক সোলাইমান আলী জানান, তিনি প্রায় ১৯বিঘা জমিতে বিভিন্ন জাতের ধান রোপন করেছেন। এর মধ্যে প্রায় ৫/৬ বিঘা আতব ধানে ব্লাস্ট রোগে আক্রমন করেছে । তিনবার ওষুধ ছিটিয়েও কোন কাজ হয়নি । ইতি মধ্যে আক্রান্ত এসব জমির প্রায় ৪০-৪৫% ধানের শীষ মরে গেছে । এছাড়া সিলমাদার,করজগ্রাম,মালসনসহ বিভিন্ন এলাকার কৃষকদের সাথে কথা বললে তারা জানান,গত ইরি/বোরো মৌসুমে ধানের ফলন ভাল হলেও বাজারে দরপতনের কারনে বিঘাপ্রতি ৩/৪ হাজার টাকা করে লোকসান হয়েছে। এখনো বাজারে সন্তোষজনক দাম নেই। এর উপর আবার বøাস্টসহ বিভিন্ন রোগ বালায় ঝেঁকে বসেছে । ফলে ধানের ফলন নিয়ে চরম সংকায় রয়েছেন তারা । এক্ষেত্রে আবারো ধান আবাদে লোকসান হতে পারে বলে আশংকা করছেন কৃষকরা।

এব্যপারে রাণীনগর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা শহিদুল ইসলাম বলেন,আবহাওয়াজনিত কারনে কিছু কিছু জমিতে ব্লাস্ট রোগ দেখা দিয়েছে,তবে এক্ষেত্রে ক্ষতির কোন সম্ভবনা নেই ।




More News Of This Category




side bottom




© All rights reserved © 2020 Atozithost
Design & Developed by: ATOZ IT HOST
Tuhin